মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

মামলার আবেদন

 

সূত্র: পিটিশন নং- ৮১/১৩ উলি

প্রসেস নং- ৯৭/১৩                                             তারিখ: ২৩/০৬/২০১৩ইং।

 বিবরনমন্তব্য
 

      উপরোক্ত মামলাটি প্রাপ্তির পর বাদী-আসামী উভয় পক্ষকে নোটিশ করি।

বাদী শুনানীর  ৩টি ধার্য্য তারিখেই উপস্থিত থাকলেও আসামীপক্ষ গড়হাজির

থেকে গ্রাম আদালতকে অবমাননা করেছেন। পরে গোপনে ও প্রকাশ্যে মামলাটির

তদন্ত সম্পন্ন করি। এতে বাদীর আরজি বর্ণিত ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।

এখানে উভয়কে মামলাটি আপোষ মীমাংশা করার প্রস্তাব দিলে বাদী তাতে

সম্মত হন, কিন্তু বিবাদীগণ তা প্রত্যাখান করেন।

 

    ইহা আপনার সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে প্রেরণ করা হল।

 

 

মোঃ একরামুল হক মানিক

চেয়ারম্যান

৮নং ধামশ্রেণী ইউনিয়ন পরিষদ

উলিপুর, কুড়িগ্রাম।

 

 

 

সূত্র: মামলা নং- ১৫/২০১৩

প্রসেস নং- ৫৭/২০১৩                                                     তারিখ: ২৩/০৪/২০১৩ইং।

 বিবরনমন্তব্য
 

বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক সূত্রাধীন মামলার তদন্তের জন্য আদিষ্ট হইয়া আমি নিম্নস্বাক্ষরকারী

বাদী ও বিবাদীগণকে ০৬/১০/২০১৩ খ্রিঃ তারিখ তদন্তের দিন ধার্য করিয়া গত

২৯/০৯/২০১৩ ইং তারিখ নোটিশ প্রদান করি। ধার্য দিনে ধামশ্রেণী ইউনিয়ন পরিষদ

অফিসে বিবাদী উপস্থিত হন। বাদী উপস্থিত হন নাই।স্বাক্ষীগন গড় হাজির।তদন্তকার্যে

স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিগণও উপস্থিত ছিলেন। মামলার তদন্তের জন্য বিবাদীর

জবানবন্দী গ্রহণ করি। স্বাক্ষীগণের সাক্ষ্য গ্রহণ করি। স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তিগণের

মতামত গ্রহণ করি। বিবাদীর জবানবন্দী, স্বাক্ষীগণের স্বাক্ষ্য পর্যালোচনা

এবং সরেজমিন ও গোপন তদন্তে বাদীর আবেদনের সত্যতা পাওয়া যায় নাই।

 

ইহা মহোদয়ের সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রেরণ করা হলো।

 

মোঃ একরামুল হক মানিক

চেয়ারম্যান

৮নং ধামশ্রেণী ইউনিয়ন পরিষদ

উলিপুর, কুড়িগ্রাম।